কোরআন

মারোয়ারি ভাষায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীর কোরআন অনুবাদ

মারোয়ারি ভাষায় পবিত্র কোরআনের অনুবাদ করে সবার নজর কাড়েন রাজস্থানের লেখক রাজিব শরমা। রাজস্থানের দৈনিক ‘রাজস্থান পত্রিকা’ কর্মরত রাজিব শরমা এর আগে মহানবী মুহাম্মাদ (সা.)-এর জীবনীগ্রন্থ লিখেন। রাজস্থানের ঝুনঝুনু জেলার কোলসিয়া গ্রামে বসবাস করেন তিনি।

২০১৫ সালের মার্চ মাসে মারোয়ারি ভাষায় পবিত্র কোরআনের অনুবাদকর্ম শুরু করেন রাজিব। এর আগে মারোয়ারি ভাষায় লিখিত মহানবীর জীবনীগ্রন্থ বেশ সাড়া জাগিয়েছিল।

কোরআনের অনুবাদ সম্পন্ন করে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে রাজিব জানান, ‘আমি একজন লেখক। কালি আমার রক্ত এবং কলম আমার হৃদয়। আমি একজন গর্বিত হিন্দু।’

অজ্ঞতার কারণে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের প্রতি মানুষের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দূর করতেই কোরআন অনুবাদ করেছেন বলে জানান রাজিব। তিনি অনুভব করেন যে অজ্ঞতাকে সবার নিন্দা জানানো উচিত।মূলত অজ্ঞতাই সমাজের সব শ্রেণির মধ্যে বিরোধকে উচকে দেয়।

রাজিব শরমা বলেন, ভুলবশত অনেক মানুষ মনে করে যে ইসলামের শিক্ষা কেবল আরবদের জন্য। কিন্তু কোনো উত্তম বার্তা নির্দিষ্ট ভূখণ্ডের জন্য সীমাবদ্ধ হতে যাবে কেন? ভালো কিছু কোনো দেশের জন্য নির্দিষ্ট হতে পারে না। পুরো মানবজাতির জন্য তা সুবিদিত।

আরবি ভাষা ভালো না জানলেও কোরআনের অনুবাদ করতে সমস্যা হয়নি রাজিব শরমার। ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কোরআনের শব্দ শব্দ অনুবাদ ব্যবহার করেন তিনি। এর মাধ্যমে বাক্যের মূল ভাব বুঝতে পারেন।

২০১৭ সালে শুরু করে দুই বছর পর হাতে লিখে অনুবাদের পাণ্ডুলিপি সম্পন্ন হয়। রাজিব শরমা বলেন, মারোয়ারি ভাষায় অমুসলিমের লিখিত একটিই প্রথম কোরআনের অনুবাদ।

হাতে লেখা পাণ্ডুলিটি টাইপ করা, সম্পাদনা ও প্রুফরিডিং শেষ করতে দীর্ঘ সময় ব্যয় হয়। তাছাড়া অনুবাদ শেষ হওয়ার আগেই দীর্ঘদিন অসুস্থাবস্থায় ছিলেন তিনি। এখন তিনি অনুবাদটি প্রকাশের জন্য একটি প্রকাশনীর অনুসন্ধানে আছেন। হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রাম চ্যানেল, ফেসবুক পেজে মারোয়ারি ভাষায় কোরআনের অনুবাদ নিয়মিত প্রকাশ করেন।

সূত্র : দ্য মিলি গ্যাজেট