সাদাকাতুল ফিতরের ৭টি মাসআলা

সাদাকাতুল ফিতর কার উপর ওয়াজিব এবং কখন ওয়াজিব: ঈদের দিন সুবহে সাদিকের সময় যার কাছে যাকাত ওয়াজিব হওয়া পরিমাণ অর্থাৎ অত্যাবশ্যকীয় আসবাব সামগ্রী, ব্যবহার্য দ্রব্যাদি, বাসগৃহ ইত্যাদি বাদ দিয়ে সাড়ে বায়ান্ন তোলা তথা ৬১২.৩৬ গ্রাম রূপা বা সাড়ে সাত তোলা অর্থাৎ, ৮৭.৪৮ গ্রাম স্বর্ণ অথবা সমমূল্যের সম্পদ থাকে তার উপর সাদাকাতুল ফিতর ওয়াজিব। এক্ষেত্রে কারো যদি ঋণ থাকে তাহলে ঋণের পরিমাণ বিয়োগ দেয়ার পর অবশিষ্ট সম্পদ হিসাব করা হবে।

অত্যাবশ্যকীয় আসবাব এর ব্যাখ্যা হলো, থাকার ঘর, পরিধানের কাপড়, ব্যবহারের গাড়ি ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী, যা সর্বদা বা মাঝে মাঝে ব্যবহার হয়, এ সবকিছুই অত্যাবশ্যকীয় আসবাব সামগ্রীর অন্তর্ভুক্ত। যেসব জিনিস বছরে একবারও ব্যবহার হয় না সেগুলো প্রয়োজনের অতিরিক্ত বলে গণ্য হবে। এমনিভাবে অবৈধ জিনিসের কোনো প্রয়োজন নেই।

অতএব টি.ভি., গিটার, শোপিজ, সৌখিনতার জিনিসপত্র ইত্যাদি অতিরিক্ত বলে গণ্য হবে। উলামায়ে কিরামের জন্য কিতাব প্রয়োজনীয় সামগ্রীর অন্তর্ভুক্ত।

সাদাকাতুল ফিতরের হকদার কারা: যারা যাকাতের হকদার তারাই শুধু সাদাকাতুল ফিতরের হকদার। তবে শুধু অমুসলিম গরীবদের ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। অমুসলিমকে যাকাত দেয়া যায় না, সাদাকাতুল ফিতর দেয়া যায়।

যাকাত ও সাদাকাতুল ফিতরের নেসাবের মধ্যে পার্থক্য: যার ওপর যাকাত ওয়াজিব তার ওপর সাদাকাতুল ফিতরও ওয়াজিব। পার্থক্য হলো, যাকাতের নেসাবের জন্য স্বর্ণ, রূপা, নগদ টাকা ও ব্যবসায়িক মালামাল হওয়া শর্ত। কিন্তু সাদাকাতুল ফিতরের জন্য এগুলো শর্ত নয়।

যে কোনো ধরণের সম্পদ নেসাব পরিমাণ, প্রয়োজনের অতিরিক্ত এবং ঋণমুক্ত হলেই সাদাকাতুল ফিতর ওয়াজিব হয়। তাছাড়া যাকাতের মধ্যে নেসাব পরিমাণ সম্পদের উপর একবছর অতিবাহিত হওয়া শর্ত, কিন্তু সাদাকাতুল ফিতরের মধ্যে এটি শর্ত নয়।

সাদাকাতুল ফিতরের পরিমাণ: সাদাকাতুল ফিতর যব, খেজুর, পনির ও কিসমিস দ্বারা আদায় করলে প্রত্যেক ফিতরার জন্য ৩ কেজি ২৬৫.৯২ গ্রাম বা তার মূল্য দান করবে। আর গম বা আটা দ্বারা দিলে পৌনে দুই সের =১৬৩২.৬৯ গ্রাম বা তার মূল্য দান করতে হবে।

আর চাউল বা অন্য কিছু দ্বারা আদায় করলে এই পরিমাণ দিতে হবে, যা পৌনে দুই সের =১৬৩২.৬৯ গ্রাম গমের মূল্য সমপরিমাণ হয়। -ফাতাওয়া হিন্দিয়া : ১/১৯১।

রোযা রাখতে না পারলেও সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব রোযা না রাখলে বা না রাখতে পারলে সামর্থ্যবান হলে তার উপরও সাদাকাতুল ফিতর দেয়া ওয়াজিব। -ফাতাওয়া হিন্দিয়া : ১/১৯২ ।

সাদাকাতুল ফিতর কার কার পক্ষ থেকে আদায় করতে হয়: সাদাকাতুল ফিতর নিজের পক্ষ থেকে এবং পিতা হলে নাবালিগ সন্তানদের পক্ষ থেকে দেয়া ওয়াজিব। বালেগ সন্তান, স্ত্রী, স্বামী, মাতা-পিতা প্রমুখের পক্ষ থেকে দেয়া ওয়াজিব নয়। তবে একান্নভুক্ত পরিবার হলে তাদের পক্ষ থেকে দিয়ে দেয়া মুস্তাহাব। -ফাতাওয়া হিন্দিয়া : ১/১৯২।

ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বেই ফিতরা দিয়ে দেয়া উত্তম: ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বেই ফিতরা দিয়ে দেয়া উত্তম। অবশ্য নামাযের পূর্বে দিতে না পারলে পরে দিলেও চলবে। তাছাড়া রমযানে দিলেও আদায় হবে। তবে ঈদের দিনের পর বিলম্ব করা মাকরূহ।
-রদ্দুল মুহতার : ৩/৩২২ ।

একজনের ফিতরা একাধিক গরীবকে দেয়া: একজনের ফিতরা এক বা একাধিক গরীবকে দেয়া জায়েয আছে। এমনিভাবে কয়েকজনের ফিতরা একজন গরীবকে দেওয়াও জায়েয। তবে শর্ত হলো, এই পরিমাণ দেওয়া যাবে না, যার দ্বারা সে নেসাবের মালিক হয়ে যায়। -ফাতাওয়া হিন্দিয়া : ১/১৯৩।

লেখক: নায়েবে মুফতি, ইসলামিক ফিকহ একাডেমী ঢাকা