যাক্কুম গাছ

যাক্কুম গাছ: মারাত্মক ভয়াবহ ও বীভৎস একটি গাছ

যাক্কুম এক ধরনের গাছ। তিহামা এলাকায় এ গাছ দেখা যায়। এর স্বাদ হয় তিক্ত,গন্ধযুক্ত। এটি ভাঙলে এর মধ্য থেকে দুধের মত সাদা পদার্থ বের হয়। আর এ পদার্থ যদি গায়ে লাগে তবে ফুলে ওঠে ও ফোস্কা পড়ে। আল- কুরআনে আছে জাহান্নামীদের ক্ষুধা লাগলে যাক্কুম গাছের ফল খেতে দেয়া হবে।

জাহান্নামিদের খাদ্য হবে যাক্কুম গাছের ফল

পবিত্র কোরআনে বর্নিত যাক্কুম গাছ যা দেখতে মারাত্মক ভয়াবহ। তাফসিরে এসেছে এই গাছ জাহান্নামীদের খাদ্য হিসেবে দেওয়া হবে। এই গাছ সৌদি আরবের তায়েফ অঞ্চলে দেখা যায়। মক্কা থেকে প্রায় ৮০ কিলোমিটার দূরে তাইফ শহর অবস্থিত। সে শহরটি চারদিকে শীতল পাহাড় দ্বারা বেষ্টিত। এখন এই অঞ্চলে যাক্কুম গাছও সমৃদ্ধ হচ্ছে। এটি প্রচুর বড় বড় তীক্ষ্ণ কাঁটযুক্ত একটি গাছ। পবিত্র কুরআনে সুরা আল-ওয়াকিয়াহ এর ৫২ নং আয়াতে বলা হয়েছে, এই গাছের ফল হবে জাহান্নাম বাসীদের জন্য খাদ্য স্বরূপ। “লায়া’কিলুনা মিন সাজারীম মিন যাক্কুম’ অর্থাৎ-“তোমরা অবশ্যই যাক্কুম গাছ থেকে খাবে”

সুরা সাফফাতে আল্লাহ আরো বলেন, (62) إِنَّا جَعَلْنَاهَا فِتْنَةً لِّلظَّالِمِينَ (63) إِنَّهَا شَجَرَةٌ تَخْرُجُ فِي أَصْلِ الْجَحِيمِ (64) طَلْعُهَا كَأَنَّهُ رُءُوسُ الشَّيَاطِينِ (65) فَإِنَّهُمْ لَآكِلُونَ مِنْهَا فَمَالِئُونَ مِنْهَا الْبُطُونَ (66) ثُمَّ إِنَّ لَهُمْ عَلَيْهَا لَشَوْبًا مِّنْ حَمِيمٍ (67) ثُمَّ إِنَّ مَرْجِعَهُمْ لَإِلَى الْجَحِيمِ (68)

অর্থাৎ, আপ্যায়নের জন্য কি এটিই উত্তম না যাক্কুম বৃক্ষ? সীমালংঘনকারীদের জন্য আমি এ সৃষ্টি করেছি পরীক্ষাস্বরূপ। এ বৃক্ষ জাহান্নামের তলদেশ হতে উদগত হয়, এর মোচা শয়তানের মাথার মত সীমালংঘনকারীরা তা ভক্ষণ করবে এবং তা দিয়ে উদর পূর্ণ করবে। তার উপর অবশ্যই ওদের জন্য ফুটন্ত পানির মিশ্রণ থাকবে। অতঃপর অবশ্যই ওদের প্রত্যাবর্তন হবে জাহান্নামের দিকে। (স্বা-ফ্‌ফাতঃ ৬২-৬৮) এছাড়া আল্লাহ তায়ালা বিভিন্ন সুরায় উল্লেখ করেছেনঃ * সূরা আল-ইসরা এর ৬০ নং আয়াতে। * সূরা আদ-দুখান এর ৪৩ নং আয়াতে * এবং সূরা আল-ওয়াকিয়াহ এর ৫২ নং আয়াতে সহ মোট ৮ বার ব্যবহৃত হয়েছে। এই খাবার মূলত জেনাকারী বা ব্যভিচারী স্ত্রী-পুরুষদের খাওয়ানো হবে। আল্লাহপাক আমাদের সকলকে জেনা ব্যভিচার থেকে হেফাজত করুন-আমীন।

যাক্কুম গাছ

কোরআনে বর্ণিত ‘যাক্কুমের’ কাহিনী

‘যাক্কুম’ শব্দটি কোরআনের তিনটি সূরায় তিনবার উল্লেখ করা হয়েছে। সূরাগুলো হচ্ছে- ‘দোখান’, ‘সাফফাত’ এবং ‘ওয়াকিআ’। এতদসংক্রান্ত আয়াতগুলোতে যাক্কুমের স্বরূপ, বৈশিষ্ট্য ইত্যাদি বর্ণনা করার পাশাপাশি বলা হয়েছে, কেয়ামতের দিন এটা (যাক্কুম) হবে জাহান্নামিদের আহার-আপ্যায়ন। বিভিন্ন তাফসির গ্রন্থে ‘যাক্কুম’ বৃক্ষের বিশদ বিবরণ প্রদত্ত হয়েছে এবং দুনিয়াতে এ বৃক্ষের অস্তিত্ব সম্পর্কেও নানা তথ্য পরিবেশিত হয়েছে। কোরআনের তিনটি সূরায় ‘যাক্কুম’ বৃক্ষের স্বরূপ তুলে ধরা হয়েছে তা এভাবে :
১. সূরা সাফফাতে বলা হয়েছে, আপ্যায়নের জন্য কি এটাই শ্রেয় না ‘যাক্কুম’ বৃক্ষ। জালিমদের জন্য এটা সৃষ্টি করেছি পরীক্ষা স্বরূপ। এই বৃক্ষ উদগত হয় জাহান্নামের তলদেশ হতে, এর মোচা যেন শয়তানের মাথা। ওরা এটা হতে ভক্ষণ করবে এবং উদর এ দ্বারা। তদুপরি ওদের জন্য থাকবে ফুটন্ত পানির মিশ্রণ। (আয়াত : ৬২-৬৭) ২. সূরা দোখানে বলা হয়েছে, নিশ্চই ‘যাক্কুম বৃক্ষ হবে পাপির খাদ্য, গলিত তম্রের মতো ওদের উদরে ফুটতে থাকবে ফুটন্ত পানির মতো। ওকে ধর এবং টেনে নিয়ে যাও জাহান্নামের মধ্যস্থলে, অত:পর ওর মস্তকের ওপর ফুটন্ত পানি ঢাল, শাস্তি দাও এবং বলা হবে আস্বাদ গ্রহণ করো, তুমি তো ছিলে সম্মানিত, অভিজাত। (আয়াত : ৪৫-৪৯) ৩. সূরা ওয়াকিআতে বলা হয়েছে, অত:পর হে বিভ্রান্ত অস্বীকারকারীরা! তোমরা অবশ্যই আহার করবে ‘যাক্কুম’ বৃক্ষ হতে এবং তা দ্বারা তোমরা উদর পূর্ণ করবে, পরে তোমরা পান করবে তার ওপর অত্যুষ্ণ পানি। আর পান করবে তৃষ্ণার্ত উষ্ট্রের ন্যায়। কেয়ামতের দিন এটাই হবে ওদের আপ্যায়ন। (আয়াত : ৫২-৫৬)

উল্লিখিত আয়াতগুলোতে স্পষ্ট করে জাহান্নামিদের খাদ্য ও পরিণতির কথা বলে দেয়া হয়েছে। এ সম্পর্কে তাফসির গ্রন্থগুলোতে বহু বিবরণ রয়েছে। এখানে আমরা কিছুটা ভিন্ন আঙ্গিকে ‘যাক্কুম’ বৃক্ষের কথা বলতে চাই। আর তা হচ্ছে, জাহান্নামিদের কেয়ামতের কোনো সময় এ ‘যাক্কুম’ আপ্যায়ন করা হবে, কোরআন ও হাদিসের আলোকে তা নিম্নরূপ : জাহান্নামের যে সাতটি স্তর আছে তার প্রথমটি হচ্ছে ‘জাহিম’। এ স্তর পাপি মুসলমান ও সেসব কাফেরের জন্য নির্ধারিত, যারা শির্ক করা সত্তে¡ও পয়গম্বরদের স্বীকার ও সমর্থন করত। এতদ্ব্যতীত অন্যান্য শ্রেণীর মোশরেক অগ্নি উপাসক, নাস্তিক, ইহুদি, নাসারা (খ্রিষ্টান) এবং মোনাফেকদের জন্য নির্ধারিত কয়েকটি স্তর আছে কোরআনের বিভিন্ন আয়াতে। এগুলোর নাম দেয়া হয়েছে; ‘ঘাইয়্যুন’, ‘জামহারির’, ‘জুববুল হাজান’, ‘তীনাতুল খাবাল’, ‘ছাউদ’, ‘মাউন হামিম’, ‘গাসসাক’, ‘গিসলীন’ এবং ‘যাক্কুম’। এসব স্তর, ঘর, ক‚প ইত্যাদিতেও কঠিন কঠিন বেশুমার আজাব ভোগ করতে হবে। এগুলো একে একে প্রত্যেকটি অতিক্রম করতে হবে নির্ধারিত সর্ব প্রকারের আজাব ভোগের মাধ্যমে।
অবর্ণনীয় এসব আজাবের জন্য দেহকে এক ঘণ্টার মধ্যে সাতশ’ বার পর্যন্ত বদল করা হবে। কিন্তু দেহের আসল অঙ্গগুলো ঠিকই থাকবে। এ সুদীর্ঘকাল অভুক্ত থাকার ফলে যে করুণ দশার সৃষ্টি হবে তা অকল্পণীয়। এ মরণদশা অবস্থায় খাদ্য চাওয়া হবে, তখনই আপ্যায়ন করার জন্য দেয়া হবে ‘যাক্কুম’ বৃক্ষ।

যাক্কুম গাছ

‘জাহিম’ দোজখের তলদেশে গজানো ‘যাক্কুম’ তিক্ত, কাটাদার ও খুব শক্ত। কাফেরদের আহার করার জন্য দেয়া হবে। ওরা যখন খেতে আরম্ভ করবে তখন গলায় ফেসে যাবে। তারা পানি চাইবে, তখন নির্দেশ হবে ‘জাহিম’ দোজখ হতে পানি পান করানোর। পানি মুখে নেয়ার সাথে সাথে ঠোঁট জ¦লে ঝলসে যাবে এবং তা কপাল ও বক্ষে গড়াতে থাকবে। জিব বেঁকে যাবে, কণ্ঠনালী গলিত হয়ে ছিন্ন ভিন্ন হয়ে যাবে, নাড়িভ‚ঁড়িগুলো ফেঁটে পায়খানার পথে বের হয়ে পড়বে। এ অস্থির অবস্থায় জাহান্নামের দারোগার সামনে জাহান্নামিরা আহাজারি করে বলবে, ‘আমাদেরকে মেরে ফেলো, যাতে আমরা এসব বিপদ হতে রক্ষা পাই।’ এক হাজার বছর পর দারোগা জবাব দেবে, ‘তোমরা সর্বদাই এখানে থাকবে।’ এর এক হাজার বছর পর আল্লাহ তায়ালার নিকট প্রার্থনা করবে, ‘হে আল্লাহ! আমাদের প্রাণ নিয়ে নাও এবং তোমার রহমত দ্বারা এ আজাব হতে রক্ষা করো।’ একহাজার বছর পর আল্লাহর দরবার হতে জবাব আসবে, ‘খামুশ! আমার নিকট প্রার্থনা করবে না। তোমাদের এখান হতে বের হওয়ার আর কোনো সুযোগ নেই।’ সর্বশেষে ওরা বাধ্য হয়ে বলবে, ‘এসো ভাই ছবর কর, ধৈর্য ধারণ করো। কেননা ধৈর্যের ফল হয় উত্তম।’ অত:পর আল্লাহ তায়ালার নিকট বিনয় ও আহাজারির সাথে এক হাজার বছর পর্যন্ত তাঁকে স্মরণ করবে। পরিশেষে, অত্যন্ত নিরাশ হয়ে বলবে, ‘অস্থিরতা ও ধৈর্য আমাদের জন্য সমান, কোনো রকমেই মুক্তি নেই!’ অত:পর তাদের মস্তক ধরে খাড়া করা হবে, তাদের দেহ বিকৃত হয়ে কুকুর, শকুন, বাঘ, বানর, সাপ ও অন্যান্য জীব-জন্তুর আকার ধারণ করবে।