টিকা

কোভিশিল্ডকে স্বীকৃতি দিলো ব্রিটেন

কয়েকদিনের নাটকীয়তার পর ভারতে উৎপাদিত অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথভাবে তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা কোভিশিল্ডের স্বীকৃতি দিয়েছে যুক্তরাজ্য। গত কয়েকদিনের টানাপড়েনের পর বুধবার ব্রিটেনের ভ্যাকসিন স্বীকৃতি তালিকায় ভারতের কোভিশিল্ডের নাম যুক্ত হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, যুক্তরাজ্যের স্বীকৃতি পাওয়া ভ্যাকসিনের তালিকায় কোভিশিল্ডকে যুক্ত করা হয়েছে। এই ভ্যাকসিন নেওয়া লোকজন আগামী অক্টোবর থেকে ব্রিটেনে প্রবেশ করতে পারবেন এবং তাদের আইসোলেশনে থাকতে হবে না।

ব্রিটেনের সরকার বলেছে, আগামী ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর হতে যাওয়া বিদেশিদের নতুন ভ্রমণ বিধি অনুযায়ী তারা ভারতের কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনকে স্বীকৃতি দেবে।

কোভিশিল্ডের টিকার দুই ডোজ নেওয়া থাকলেও লোকজনকে টিকাগ্রহীতা হিসেবে বিবেচনা করা হবে না এবং ব্রিটেনে প্রবেশের পর ১০ দিনের স্বেচ্ছা-আইসোলেশনে থাকতে হবে বলে যুক্তরাজ্য সরকার নতুন স্বাস্থ্য নির্দেশিকায় জানিয়েছিল। অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিন ব্রিটেনের স্বীকৃতি না পাওয়ায় ভারতে ব্যাপক প্রতিবাদ ও সমালোচনার ঝড় শুরু হয়।

গত জুলাই মাসে ভারতের কাছ থেকে কোভিশিল্ডের ৫০ লাখ ডোজ পাওয়ার পরও ব্রিটেনের এই সিদ্ধান্ত ভারতীয়দের ক্ষুব্ধ করে তোলে। ৭২ কোটি ১০ লাখের বেশি ডোজ কোভিশিল্ড এখন পর্যন্ত প্রয়োগ করা হয়েছে; করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলায় ভারতে এই ভ্যাকসিনই সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হচ্ছে।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেছেন, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাসের কাছে বিষয়টি জোরালোভাবে উপস্থাপনের পর যুক্তরাজ্য সরকার কোভিশিল্ডের স্বীকৃতি দিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের সরকারি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না এবং জ্যানসেনের ভ্যাকসিনকে অস্ট্রেলিয়া, অ্যান্টিগুয়া এবং বার্বুডা, বার্বাডোস, বাহরাইন, ব্রুনাই, কানাডা, ডোমিনিকা, ইসরায়েল, জাপান, কুয়েত, মালয়েশিয়া, নিউজিল্যান্ড, কাতার, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের সুপারিশের ভিত্তিতে স্বীকৃতি দিয়েছে ব্রিটেন।