সুপার শপ

মুদি দোকান বা ছোট সুপার শপ ব্যবসার প্রধান পাঁচ চ্যালেঞ্জ

খুচরো খাতের ব্যবসার মধ্যে অন্যতম একটি লাভজনক ব্যবসা মুদি দোকান বা সুপার শপ। তবে এই ব্যবসা তখনই লাভজনক হতে পারে যখন ব্যবসাটি সুন্দরভাবে পরিচালনা করা যায়। আসুন মুদির দোকান বা ছোট পরিসরের সুপার শপ ব্যবসার মূল ৫টি চ্যালেঞ্জ কি কি তা জানার চেষ্টা করি।

৫। সঠিক স্থান নির্বাচন: যেকোন ব্যবসার ন্যায় মুদির দোকান ব্যবসায় প্রতিযোগিতা রয়েছে। এমন কোন আবাসিক এলাকা খুঁজে পাওয়া যাবে না যেখানে ২/৩টি মুদির দোকান নেই। যখন আপনি আরেকটি দোকান দিতে চাইবেন তখন আপনাকে সঠিক স্থান নির্বাচন করতেই হবে।

আপনি যদি বাজারে মুদির দোকান নিতে চান তবে যেখানে আরোও মুদির দোকান রয়েছে সেখানেই দিতে হবে। আর যদি আবাসিক এলাকার মধ্যে দিতে চান তবে আপনার প্রতিযোগিদের অবস্থান বুজে দোকানের স্থান নির্বাচন করতে হবে। বিশেষভাবে দুই বা তিন রাস্তার মুখে মুদির দোকান বা ছোট পরিসরের সুপার শপ খোলা যেতে পারে।

৪। দোকানের সাইজ ও গোডাউন: সাধারন সাইজের দোকানের চেয়ে মুদির দোকানের সাইজ বড় হওয়া উচিত। আমাদের মধ্যে অনেকেই এই ভুল করে থাকি যে, যেকোন সাইজের দোকান নিয়েই ব্যবসা শুরু করি, যা আসলে আমাদের ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতাকে খারাপ করে দিতে পারে।

তাছাড়া আপনার গোডাউন ও দোকানের দূরত্ব যদি বেশী হলে আপনাকে আরেকটি বাড়তি জামেলায় পরতে হতে পারে। তাই দোকান ভাড়া বা কেনার আগে আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে, আপনার দোকানের সাইজ যেন বড় হয় এবং গোডাউন যেন দোকানের কাছেই থাকে।

৩। দক্ষ ও বিশ্বস্ত কর্মচারী: মুদির দোকান বা ছোট পরিসরের সুপার শপ ব্যবসার অন্যতম চ্যালেঞ্জ দক্ষ ও বিশ্বস্ত কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া ও তাদেরকে ধরে রাখা। আপনার কতজন কর্মচারী লাগবে তা আপনার দোকানের সাইজের উপর নির্ভর করবে। সাধারনত বেশীর ভাগ দোকানে একজন বা দুই জন কর্মচারী থাকে।

এই কর্মচারীদের অবশ্যই দক্ষ ও বিশ্বস্ত হতে হবে। এছাড়া আপনি যেমন গ্রাহকের সাথে সুন্দর ব্যবহার করবেন ঠিক তেমনি আপনার কর্মচারীদেরও গ্রাহকের সাথে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে।

২। গ্রাহক ধরে রাখা: আপনি যদি সত্যিকার অর্থে মুদির দোকান বা ছোট পরিসরের সুপার শপ ব্যবসা করে সফল হতে চান তবে আপনাকে গ্রাহক ধরে রাখতে হবে। এরজন্য আপনাকে খুব বেশী কষ্ট করতে হবে তা কিন্তু না।

আপনি নানা পদ্ধতি অবলম্বন করে গ্রাহক ধরে রাখতে পারেন। সর্বপ্রথম সুন্দর ব্যবহারের মাধ্যমে একজন গ্রাহকের মন জয় করতে পারেন, এরজন্য হাঁসিমাখা মুখে কথা বলতে হবে। এর পরে ভালো মানের পন্য সরবরাহ করতে হবে।

কোন পণ্যের সাথে ফ্রী কিছু থাকলে তা নিজের কাছে না রেখে গ্রাহককে দিতে হবে, কেননা এটি তার অধিকার। এর পরে গ্রাহক কত টাকার পণ্য কিনছে তার উপর ভিত্তি করে একটু ডিসকাউন্ট করতে পারেন। তাছাড়া গ্রাহক বাজারের ব্যাগ না আনলে ফ্রীতে একটি বাজারে ব্যাগ দিতে পারেন। বিশ্বাস করুন, এই ছোট ছোট বিষয়গুলো আপনাকে এই ব্যবসায় সফল করবে।

১। ছোট পরিসরের সুপার শপ ব্যবসার বাকী না দেওয়া প্রধান চ্যালেঞ্জ: অনেকই আমার সাথে একমত হবে না। আমাদের মধ্যে অনেকের ধারনা বাকী না দিলে মুদির দোকান দেওয়া যাবে না।

সত্যি বলতে কি আপনি যদি বাকী দিবেন এটি মনে করে এই ব্যবসা শুরু করেন তবে দেউলিয়া হতে খুব একটা সময় লাগবে না, আর না হয় আপনাকে তিনটি দোকান দিতে যত টাকা লাগবে তত টাকা নিয়ে এই ব্যবসায় নামতে হবে।

আপনি যেই দিন থেকে দোকান শুরু করবেন সেই দিন থেকেই বাকী দেওয়া বন্ধ করতে হবে। আপনি যদি এই সংস্কৃতি প্রথম থেকেই শুরু করতে পারেন তবে খুব বেশী সমস্যার মধ্যে পরবেন না। তবে হ্যাঁ, বাকী দিলে বিক্রি বেশী হয়, কিন্তু আপনাকে তো আবার পণ্য কিনতে হবে, তাই বিক্রি বেশী করতে গিয়ে আপনি নিশ্চিয়ই মূলধন হারাতে চাইবেন না।