সাঈদ খোকন

কোনো মন্তব্য করতে চান না সাঈদ খোকন

ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই আলোচনা ছিল দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে (ডিএসসিসি) মেয়র পদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী কে হচ্ছেন? সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে রোববার (২৯ ডিসেম্বর) দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে নিজেদের মেয়র প্রার্থীর নাম ঘোষণা করে আওয়ামী লীগ।

ডিএনসিসিতে মেয়র পদে বিদায়ী মেয়র আতিকুলের নাম ঘোষণা করা হয়। অপরদিকে ডিএসসিসিতে এ পদের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয় সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপসের নাম। প্রথম থেকেই ডিএনসিসিতে বিদায়ী মেয়র আতিকুল ইসলামের নাম বেশি উচ্চারিত হলেও শঙ্কার কথা শোনা যাচ্ছিল ডিএসসিসির বিদায়ী মেয়র সাঈদ খোকনকে নিয়ে। বিশেষ করে মনোনয়ন সংগ্রহের দিন খোকন ‘কঠিন সময় যাচ্ছে’ বলে কেঁদে ফেলায় সেই শঙ্কা আরও বাড়ে। শেষ পর্যন্ত শঙ্কাই সত্যি হলো, ডিএনসিসির আসন্ন নির্বাচনের লড়াইয়ে আতিকুল নৌকার প্রার্থীতা পেলেও ডিএসসিসির নির্বাচনে ছিটকে যান সাঈদ খোকন।

প্রার্থীতার প্রসঙ্গে মেয়র সাঈদ খোকন কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দলের মনোনয়ন ঘোষণার দিন নিজের বাসাতেই ছিলেন সাঈদ খোকন। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের কার্যালয় নগর ভবনেও যাননি তিনি।

এদিকে রোববার আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির কার্যালয়ে দুই সিটির মেয়র প্রার্থীর নাম ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘মেয়র সাঈদ খোকনকে সঙ্গে নিয়ে দক্ষিণ সিটির উন্নয়নে কাজ করবো। উত্তর ও দক্ষিণ মিলে আমরা নতুন ঢাকা গড়বো।’

অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে শেখ ফজলে নূর তাপস আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ায় অত্যন্ত খুশি হয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে (ডিএনসিসি) একই দল থেকে আবারও মনোনয়ন পাওয়া মেয়র আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘আমি অত্যন্ত খুশি হয়েছি যে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন শেখ ফজলে নূর তাপস। আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। এটি আমাদের জন্য বড় অর্জন, বড় পাওয়া। আমরা একসঙ্গে কাজ করব। উত্তর ও দক্ষিণ মিলে একটি সুন্দর ঢাকা শহর উপহার দিতে পারব এ প্রত্যাশা ও বিশ্বাস আছে।’