বিমান

অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচল ১৪ দিন পর স্বাভাবিক

সরকারি বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ায় ১৪ দিন পর পুরোদমে চালু হলো দেশের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচল। এতদিন সীমিতভাবে কেবল প্রবাসী ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের যাত্রীদের জন্যই ফ্লাইট চালু ছিল। সরকার এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) প্রজ্ঞাপনের পর আজ থেকে পুরোদমে চালু হয়েছে ফ্লাইট।

হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) সকাল থেকে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ঢাকা থেকে সৈয়দপুরে ৩টি, যশোরে ২টি, রাজশাহীতে ১টি, চট্টগ্রামে ২টি, সিলেটে ২টি, কক্সবাজারে ১টি এবং বরিশালে ১টি ফ্লাইট গেছে। এছাড়াও নভোএয়ার চট্টগ্রামে ২টি, কক্সবাজারে ১টি, সৈয়দপুরে ৩টি, বরিশালে ২টি, রাজশাহীতে ১টি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সও চার থেকে পাঁচটি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে। বেবিচকের নির্দেশনা অনুযায়ী, ফ্লাইটগুলোতে উঠার আগে এয়ারক্রাফটগুলো জীবাণুনাশক দিয়ে জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে। মাস্ক পরে যাত্রীদের তোলা হচ্ছে ফ্লাইটে।

এর আগে ১ জুলাই থেকে সরকারের কঠোর বিধিনিষেধের কারণে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করে বেবিচক। তবে দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহরের আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের যাত্রীদের বিক্ষোভের মুখে তাদের জন্য সীমিত পরিসরে ২ জুলাই থেকে আবারও ফ্লাইট চালুর অনুমতি দেওয়া হয়।

১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত সরকারি বিধিনিষেধ শিথিল করায় আবারও ফ্লাইট চালু হয়েছে। এই সময়ে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স প্রতিদিন ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে ৫টি, কক্সবাজারে ২টি, সৈয়দপুরে ৭টি, যশোরে ৬টি, সিলেট-বরিশাল ও রাজশাহীতে ৪টি করে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। নভোএয়ার চট্টগ্রামে ৬টি, সৈয়দপুরে ৬টি, যশোরে ৬টি, বরিশালে ৬টি, সিলেটে ৩টি, রাজশাহীতে ৩টি ও কক্সবাজারে ২টি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স চট্টগ্রামে ৩টি, সৈয়দপুরে ৩টি, কক্সবাজারে ২টি, যশোরে ২টি, সিলেটে ২টি, রাজশাহীতে ১টি ও বরিশালে ১টি করে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। আগামী ২৩ তারিখ থেকে আবারও আগের মতো অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞার আগাম সিদ্ধান্ত দিয়ে রেখেছে সরকার।