ইসরায়েল

হামাসের রকেট হামলায় ২ ইসরায়েলি নিহত

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী ও ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসের মধ্যে সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে। সোমবার থেকে মঙ্গলবার (১১ মে) পর্যন্ত ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে রকেট হামলা চালিয়েছে হামাস। এতে দুই ইসরায়েলির নিহত।

অন্যদিকে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের বিমান হামলায় ১০ শিশুসহ অন্তত ২৮ জন নিহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে ১৬ জনই হামাসের সামরিক বাহিনীর সদস্য বলে জানিয়েছে ইসরায়েল।

হামাসের সামরিক উইং কাসেম ব্রিগেড জানিয়েছে, পূর্ব জেরুজালেমের শেখ জাররাহ এলাকা থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদের চেষ্টা এবং পবিত্র আল-আকসা মসজিদে ইসরায়েলি তাণ্ডবের প্রতিবাদে এসব হামলা চালানো হচ্ছে। এর আগে, কাসেম ব্রিগেড শপথ করে ঘোষণা দেয়, আগ্রাসন না থামালে ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলীয় আশকেলন শহরকে ‘জাহান্নাম’ বানিয়ে দেবে তারা।

ইসরায়েলিদের উদ্দেশে হামাসের সামরিক উইং থেকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলা হয়, ‘এই বার্তাটি শত্রুদের অবশ্যই ভালোভাবে বুঝতে হবে: তোমরা সাড়া দিলে আমরা সাড়া দেব, তোমরা এগোলে আমরাও এগোব।’

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, হামাসের ছোড়া রকেটের আঘাতে ইসরায়েলের বেশ কিছু স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে আশকেলন শহরে একটি অ্যাপার্টমেন্ট এবং বেইত নেকোফা এলাকায় একটি বাড়ি ধ্বংস হয়ে গেছে।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ মঙ্গলবার (১১ মে) গাজা উপত্যকায় আরও বিমান হামলার নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে বাড়তি সেনাদের প্রস্তুত থাকতে বলেছেন।

সংবাদমাধ্যম প্রতিবেদন অনুযায়ী, নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক যৌথ সভায় পুনরায় হামলার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সভায় গাজার ওপর বিশেষ নজর রাখতেও বলা হয়েছে। ইসরায়েলের সম্প্রচারমাধ্যম চ্যানেল ১৩’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজার আশেপাশে সতর্কতার জন্য বাড়তি সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে।