মিয়ানমার

মিয়ানমারে ২ বছরের মধ্যে নির্বাচন দেবে সামরিক বাহিনী

মিয়ানমারে আগামী দুই বছরের মধ্যে নির্বাচন আয়োজন করে জয়ী দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবে দেশটির সামরিক বাহিনী। শুক্রবার রাজধানী নেপিডোতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই কথা জানান সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাও মিন তুন।

সামরিক অভ্যুত্থানের পর এই প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময় নিয়ে কোনো মন্তব্য করলো জান্তা কর্তৃপক্ষ। ব্রিগেডিয়ার জাও মিন তুন বলেন, সামরিক বাহিনী সরকারি মন্ত্রণালয় ও ব্যাংক শিগগির পুরোমাত্রায় চালু করবে।

মিয়ানমারে বিক্ষোভ ধীরে ধীরে কমে আসছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘শান্তিকামী মানুষের সহায়তায় বিক্ষোভ প্রশমিত হয়েছে, যার মূল্য আমরা দেই। আমরা জনগণকে অনুরোধ করছি নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে সহযোগিতা করার এবং তাদের সাহায্য করার।’

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাও মিন তুন জানান, মিয়ানমারে চলমান বিক্ষোভে সামরিক বাহিনী দুই শ’ ৪৮ জন নিহত হওয়ার রেকর্ড সংরক্ষণ করেছে। তবে সামরিক বাহিনী কোনো প্রকার স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ব্যবহার করেনি বলে দাবি করেন তিনি। অপরদিকে বিক্ষোভকারীদের সাথে সংঘর্ষে ১৬ পুলিশ সদস্য নিহত হয় বলে সামরিক এই মুখপাত্র জানান।

এর আগে মিয়ানমারের অবস্থা পর্যবেক্ষণকারী থাইল্যান্ডভিত্তিক সংস্থা অ্যাসিসটেন্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনারস (এএপিপি) তাদের বৃহস্পতিবার প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সামরিক অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে অন্তত ৬১৪ জন নিহত হয়েছেন।

১ ফেব্রুয়ারি তাতমাদাও নামে পরিচিত মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী দেশটিতে সেনা অভ্যুত্থান ঘটায় এবং প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট ও স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চিসহ রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেফতার করে। সাথে সাথে দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে বিতর্কের জেরে এই অভ্যুত্থান ঘটায় সামরিক বাহিনী।

সেনা অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে মিয়ানমারের বিভিন্ন শহরেই বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভকারীরা অং সান সু চিসহ বন্দী রাজনৈতিক নেতাদের মুক্তির পাশাপাশি সামরিক শাসন প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আসছেন। সূত্র: রয়টার্স

শেয়ার করুন: