চাঁদাবাজ এসআই

চাঁদাবাজ এসআই

রাঙ্গুনিয়ার রাণীরহাট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আরআরএফ পুলিশের এসআই মো. শহিদুজ্জামাকে প্রকাশ্যে চাঁদাবাজিকালে স্থানীয় লোকজন ধাওয়া দেয়। জনগনের প্রতিবাদের মুখে মোটরসাইকেল নিয়ে পালানোর সময় ধাওয়া করে ধরে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন কয়েক ঘণ্টা। পুলিশের সিনিয়র কর্মকর্তারা গিয়ে তাকে উদ্ধার করে আনেন। অভিযুক্ত এসআই শহিদুজ্জামানকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের রাঙ্গুনিয়ার ইসলামপুর ইউনিয়নের গাবতল এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চট্টগ্রাম শহর থেকে ভোরে লুকিয়ে আসা বিভিন্ন গার্মেন্টকর্মীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। এ সময় টাকা আদায় করছিলেন রাঙ্গামাটি ও কাউখালী যাবার সুযোগ করে দেওয়ার নাম করে। এ সময় তার কাছ থেকে চাঁদাবাজির ৬ হাজার টাকাও উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয়রা জানায়, রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের গাবতল এলাকায় করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে বন্ধ রাখা চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি মহাসড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে চাইলে রাণীরহাট পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শহীদুজ্জামান বাঁধা দেন। এটাই তার ডিউটি। কিন্তু কয়েকদিন ধরে কেউ হাতে টাকা গুঁজে দিতে পারলে তাকে ছেড়ে দিচ্ছেন, উন্মুক্ত করে দিচ্ছেন পথ।

স্থানীয় কামাল উদ্দিন জানান, এসআই শহিদুজ্জামান করোনাভাইরাসের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা নারী-পুরুষকে রাঙামাটি-কাউখালীসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় মাথাপিছু এক হাজার টাকা করে উৎকোচের বিনিময়ে প্রবেশ করার সুযোগ করে দিচ্ছিলেন কয়েকদিন ধরে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাঙ্গুনিয়ার গাবতল সংলগ্ন এলাকায় চট্টগ্রাম-রাঙামাটি মহাসড়কে সশস্ত্র অবস্থায় সাদা পোষাকে চাঁদাবাজি শুরু করেন তিনি। তার এই অনৈতিক কর্মকান্ড চলতে থাকায় স্থানীয় উত্তেজিত জনতা তাকে আটক করে।

খবর পেয়ে কাউখালীর দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আরিফুল ইসলাম, রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এএসপি মো. আবুল কালাম আজাদ, কাউখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল্লাহ, রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) সাইফুল ইসলামসহ পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। পরে কাউখালী থানা পুলিশ তাকে রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তর করে।

রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এএসপি মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, বিষয়টি আমরা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। এমন গর্হিত অপরাধের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তার বিরুদ্ধ বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।