করোনাভাইরাসে আক্রান্ত

থাইল্যান্ডে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ৭

থাইল্যান্ডে নতুন করে আরও সাতজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। শনিবার দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। মৃতদের মধ্যে তিনজন থাই নাগরিক এবং চারজন চীনা নাগরিক।

করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত সেখানে ৩২ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। চীনের বাইরে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সর্বোচ্চ সংখ্যা। ডিজেজ কন্ট্রোল ডিপার্টমেন্ট জানিয়েছে, নতুন করে আক্রান্ত হওয়া সাতজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে, জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে কোয়ারেন্টাইনে রাখা প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসের আরও তিন যাত্রী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে জাহাজটিতে এই ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ৬৪তে দাঁড়িয়েছে।

এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ২১ জন জাপানি নাগরিক। বাকিরা অন্যান্য দেশের নাগরিক। করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের টোকিও, সাইতামা, চিবা, কানাগাওয়া ও শিজুকোর বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অপরদিকে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে এক মার্কিন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এটাই প্রথম কোনো মার্কিন নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনা। তবে তার বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। বেইজিংয়ে মার্কিন দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, মৃত ওই ব্যক্তির বয়স প্রায় ৬০ বছর।

করোনাভাইরাসকে যতটা খারাপ মনে করা হয়েছে এটি তার চেয়েও দশগুণ বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিজ্ঞানীরা সতর্ক করে বলছেন, চিকিৎসকরা খুব কম সংখ্যক মানুষের এই ভাইরাসে আক্রান্তের বিষয়টি শনাক্ত করতে পারছেন।

শুক্রবার এক ব্রিটিশ বিজ্ঞানী সতর্ক করে বলেন, সরকারি তথ্য অনুযায়ী যে সংখ্যা জানানো হচ্ছে প্রকৃতপক্ষে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ গুণ বেশি হতে পারে।