রাজধানীতে পুলিশ-ডাকাত গোলাগুলি, নিহত ১

ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগের একটি টিমের সঙ্গে রাজধানীর ভাটারা এলাকায় ডাকাত দলের গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। ডিবির ওই বিশেষ অভিযানে অস্ত্র-গুলিসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ডাকাত দলের চার সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে মো. লাভলু নামে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। বুধবার (৬ নভেম্বর) দিবাগত রাত ২টার দিকে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় গ্রেফতার অন্যরা হলেন-সেলিম চৌকিদার, কামাল হোসেন ও মো. রাসেল। এ সময় তাদের হেফাজত থেকে ২টি পিস্তল, ৫ রাউন্ড গুলি, ৩টি র‌্যাবের জ্যাকেট, ২টি ওয়ারলেস সেট, এক জোড়া হ্যান্ডকাফ ও ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাস উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিএমপি মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের ডিসি মাসুদুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘গত ১৯ অক্টোবর বাড্ডা থানার মেরুল বাড্ডার প্রগতি সরণিতে একটি ডাকাতির ঘটনা ঘটে। একদল সংঘবদ্ধ অস্ত্রধারী ডাকাত র‌্যাবের জ্যাকেট পরে ওয়ারলেস, হ্যান্ডকাপ, পিস্তলসহ মাইক্রোবাস থেকে নেমে একটি লোকাল বাসের গতিরোধ করেন। পরে বাস থেকে একজন যাত্রীকে জোরপূর্বক নামানো হয়। তার কাছে থাকা পাঁচ লাখ ৩৫ হাজার টাকা জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে তাকে ডেমরা ব্রিজে ফেলে দেন তারা। এ ঘটনায় বাড্ডা থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলার পর থেকে থানা পুলিশের পাশাপাশি তদন্ত করে আসছিল ডিবি উত্তর বিভাগ।’

‘তথ্যপ্রযুক্তি বিশ্লেষণ ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি উত্তর বিভাগের গুলশান জোনাল টিম ভাটারা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। বুধবার ১টা ৫০ মিনিটের দিকে ভাটারা থানার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার গেট সংলগ্ন ১০০ ফিট রাস্তার ১ নম্বর ব্রিজের কাছে আসতেই একটি সাদা রংয়ের নম্বর প্লেটবিহীন মাইক্রোবাসকে রাস্তার পাশে দাঁড়ানো অবস্থায় দেখা যায়।’

মাসুদুর রহমান বলেন, ‘দাঁড়িয়ে থাকা মাইক্রোবাসটিকে চ্যালেঞ্জ করলে তাৎক্ষণিকভাবে মাইক্রোবাস থেকে পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ করতে করতে মাইক্রোবাসটি দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি বর্ষণ করে। একপর্যায়ে মাইক্রোবাসে থাকা অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের মধ্যে তিনজন কৌশলে গুলি করতে করতে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ সময় অস্ত্রধারী ডাকাত দলের চারজনকে গ্রেফতার করা হয়।’

‘এদের মধ্যে সেলিম চৌকিদার, লাভলু ও কামাল হোসেন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হলে চিকিৎসার জন্য তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লাভলু মারা যান। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে ভাটারা থানায় পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে’, যোগ করেন ডিসি মাসুদুর রহমান।