সরকারি প্রকল্পে পণ্যের দাম নির্ধারণে সতর্ক হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সরকারি প্রকল্পের পণ্য ক্রয়ে দাম নির্ধারণের ক্ষেত্রে সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলনকক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন।

সম্প্রতি বিভিন্ন প্রকল্পের পণ্য কেনায় অস্বাভাবিক মূল্য নির্ধারণ করায় গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার পর এমন নির্দেশনা এলো সরকারপ্রধানের কাছ থেকে। সভাশেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বিষয়টি গণমাধ্যমের সামনে তুলে ধরেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রকল্পে বিভিন্ন পণ্যের অস্বাভাবিক দামের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে আনেন তিনি। তখন প্রধানমন্ত্রী পণ্যের দাম নির্ধারণে আরও সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন আইটেম থাকে, পণ্যের দাম থাকে, সেগুলোর দাম আরও সাবধানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে। তাড়াহুড়া করে, দ্রুত কাজ করতে গিয়ে সেগুলো ভালোভাবে খতিয়ে দেখতে পারি না। সেগুলোর মূল্য ভালোভাবে খতিয়ে দেখতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা অহেতুক প্রশ্নের মুখোমুখি হতে চাই না। আমরা পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবদের পণ্যের মূল্য নির্ধারণে সাবধান হতে নির্দেশনা দিয়েছি। প্রকল্পের যেকোনো পণ্যের দাম নির্ধারণের ক্ষেত্রে বাজার যাচাই করে দাম নির্ধারণ করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর অন্যান্য নির্দেশনা তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, রাস্তাঘাট প্রশস্ত করার ক্ষেত্রে রাস্তার পাশে গরিব মানুষের বাড়ি, জমি রক্ষা করতে হবে। একেবারেই না পারা গেলে যথাসময়ে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ঝাড়খণ্ড থেকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণ করা হবে, সেটি দিয়ে শুধু আমদানিই নয়, ভবিষ্যতে হয়তো আমরা রফতানিও করতে পারব।

প্রকল্প তদারকি করতে আইএমইডিকে শক্তিশালী করতেও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া আজকের একনেকসভায় প্রায় ৮ হাজার ৯৬৮ কোটি ৮ লাখ টাকা ব্যয় সংবলিত আটটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।