মরণঘাতি ডেঙ্গু জ্বর আমদানি করেছে আওয়ামী লীগ: রিজভী

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আওয়ামী লীগ ১৯৯৭ সালে মরণঘাতি ডেঙ্গু জ্বর আমদানি করেছে। তখন থেকে এই এডিস মশা ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাপকভাবে।

আজ রোববার দুপুরে রাজধানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। এসময় তিনি ‘ডেঙ্গু প্রতিরোধে সরকারের কার্য্কর কোনো উদ্যোগ নেই’ বলেও অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, “আপনারা সবসময় দেখবেন উন্নয়ন কিংবা পদক্ষেপ এসব ক্ষমতাসীনদের ঠোঁটের মধ্যে এটা আটকে থাকে। কিন্তু বাস্তবে এর কোনো পদক্ষেপ কেউ কখনো দেখেনি। আজকে যানজটে, রাস্তা-ঘাটের বেহাল অবস্থায় আপনি বলুন, কোন দিক দিয়ে মানুষের স্বস্তি আছে? কোথাও স্বস্তি নাই।

তিনি বলেন, ‘মরণঘাতি ডেঙ্গু জ্বর এটা আওয়ামী লীগই আমদানি করেছে ১৯৯৭ সালে, তখন থেকে এই এডিস মশা ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাপকভাবে। এটার জন্য যে ব্যাপক ড্রাইভ… স্বাস্থ্য দপ্তর, জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তর- এদের কোনো কর্মকাণ্ড নাই।’

‘ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবেলায় সিটি করপোরেশনগুলোর উদ্যোগ কথার মধ্যে সীমাবদ্ধ মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এটার জন্য পর্যাপ্ত যে প্রতিরোধ- এটার যে অ্যান্টি ড্রাগ দরকার মানুষকে বাঁচানোর জন্য, কোনো কিছু নাই।’

রিজভী বলেন, দেশের উত্তরাঞ্চল-মধ্যাঞ্চলে এখন বন্যায় সর্বস্বহারা মানুষের হাহাকার চলছে। ভারতের উজান থেকে নেমে আসা ঢলে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। নতুন করে আরও পাঁচ জেলায় পানি প্রবেশ করেছে।

তিনি বলেন, শুকনো আশ্রয় ও খাবারের সন্ধানে ছুটছে বানভাসি মানুষ। কোথাও ত্রাণের গাড়ি কিংবা নৌকার সংবাদ শুনলেই ছুটে যাচ্ছেন তারা।

‘ত্রাণের অভাবে যখন করুণ অবস্থা, তখন সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা ঢাকায় বসে গলাবাজি করছেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে ত্রাণ পৌঁছেনি এখনও। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সরকারের যে উদ্যোগ প্রয়োজন, সেটি আমরা লক্ষ্য করছি না।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, সরকারের চরম উদাসীনতা প্রমাণ করে জনগণের প্রতি তাদের ন্যূনতম কোনো দায়বদ্ধতা নেই। তারা জনবিদ্বেষী। সরকারের দায়িত্ব বন্যাকবলিত মানুষকে রক্ষা করা। যেটি সরকার করছে না।