ডিআইজি মিজানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় সাময়িক বরখাস্তকৃত ডিআইজি মিজানুর রহমানের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার (১ জুলাই) সকাল পৌনে ১১টার দিকে মিজানকে আদালতে হাজির করে পুলিশ বলে নিশ্চিত করেছেন শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান। তিনি বলেন, হাইকোর্টের নিদের্শ অনুযায়ীই তাকে নিম্ন আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।’

বিচারপতি ওবায়েদুল হাসান ও বিচারপতি কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। এসময় ডিআইজি মিজান পুলিশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে বলে মন্তব্য করেন আদালত। দুদকের মামলায় গ্রেফতার মিজানকে রাতে শাহবাগ থানায় রাখা হয়।

এর আগে, দুর্নীতির মামলায় সাময়িক বরখাস্ত হওয়া পুলিশের উপমহাপরিদর্শক মিজানুর রহমান মিজানকে হেফাজতে নেয় শাহবাগ থানা পুলিশ। সোমবার (১ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টার দিকে মিজানকে হাইকোর্ট থেকে শাহবাগ থানা পুলিশের কাছে তুলে দেওয়া হয়।

ডিআইজি মিজান এদিন হাইকোর্টে আগাম জামিন চাইতে গিয়েছিলেন। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এস কুদ্দুস জামানের বেঞ্চ তার জামিন আবেদন খারিজ করে তাকে পুলিশের কাছে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দেন। আদালতের এ নির্দেশের পর ডিআইজি মিজান হাইকোর্টেই ছিলেন। সেখানে শাহবাগ থানা পুলিশের ওসিসহ পুলিশের অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি, চাকরির শৃঙ্খলাবিধি ভঙ্গের অভিযোগ রয়েছে। দুর্নীতির অভিযোগে গত ২৪ জুন ডিআইজি মিজান, তার স্ত্রী, ভাই ও ভাগ্নের বিরুদ্ধে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওইদিন কমিশন বৈঠকে মামলার অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে দুদকের পরিচালক মঞ্জুর মোর্শেদ মামলা করেন। মামলা নম্বর- ১।

উল্লেখ্য, এর আগে, দুর্নীতি দমন কমিশনের করা মামলায় আগাম জামিন নিতে দুপুরে হাইকোর্টে যান ডিআইজি মিজান। গত ২৪ জুন দুর্নীতি দমন কমিশন পুলিশের বিতর্কিত এই ডিআইজিসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করে। মামলায় আসামীদের বিরুদ্ধে তিন কোটি ২৮ লাখ ৬৮ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তিন কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয়েছে।