আষাঢ় আসলেও বৃষ্টি নেই, ৩৮ ডিগ্রিতে হাঁসফাঁস করছে মানুষ

বৃষ্টি ঝড়ুক আর নাই বা ঝড়ুক কাল শনিবার (১৫ জুন) পহেলা আষাঢ়। বাংলা পঞ্জিকার পাতা হিসেবে বিদায় নিচ্ছে জ্যৈষ্ঠ। কিন্তু জ্যৈষ্ঠের বিদায় ঘন্টা বাজলেও কাঠফাটা গরম এখনও মুক্তি দেয়নি। গত এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে রাজশাহীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৬-৩৭ ডিগ্রির মধ্যে ওঠানামা করলেও আজ তাপমাত্রার পারদ উঠেছে ৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

শহুরে মানুষের জীবন এই গরমে সবচেয়ে বেশি দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে। চারদিকে একটু বৃষ্টির জন্য হাহাকার পড়ে গেছে। এমন অবস্থা হয়ে দাঁড়িয়েছে যে মানুষ বাইরে কোন প্রয়োজন ছাড়া বেরই হয়না।

এছাড়া এই গরমে ডায়রিয়াসহ নানাবিধ গরমজনিত বিভিন্ন রোগের প্রভাব বেড়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিম থেকে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ অতিক্রম করে বাংলাদেশের পূর্বাংশ পর্যন্ত অগ্রসর হয়েছে।

এতে বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় রংপুর, ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা বিভাগের দুই এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

সেইসঙ্গে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। এছাড়া টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, নেত্রকোণা, কুষ্টিয়া, যশোর, রাজশাহী, রংপুর ও সিলেট বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

তবে কিছু কিছু জায়গায় তা প্রশমিত হতে পারে। যদিও ২৪ ঘণ্টায় ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা নেই। ১৬ জুনের পরে ঢাকার তাপমাত্রা কমতে পারে। এতে বৃষ্টির প্রবণতা বাড়বে। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু দেশের অবশিষ্টাংশে বিস্তার লাভ করতে পারে।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক রাজিব খান এ বিষয়ে বলেন, শুক্রবার রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এদিন রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া সকাল ৬টায় বাতাসের আদ্রতা ছিল ৯৪ শতাংশ এবং বিকেল সাড়ে ৩টায় ছিল ৫৬ শতাংশ।

আবহাওয়া কর্মকর্তা রাজিব খান বলেন, সাধারণত অনেক সময় সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত তাপমাত্রা উপরের দিকে উঠতে থাকে। এজন্য বিকেল সাড়ে ৩টায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। সন্ধ্যা ৬টায় পাওয়া তাপমাত্রা সর্বশেষ রিডিং বলে বিবেচনা করা হয়।

তবে শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টায় যে তাপমাত্রা ছিল সন্ধ্যা ৬টায় সেই তাপমাত্রা আর বাড়েনি। রাজশাহীর ওপর দিয়ে শুক্রবার মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের এই জ্যেষ্ঠ আবহাওয়া কর্মকর্তা।