বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও মানবাধিকার পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্যের উদ্বেগ

‘২০১৮ সালে বাংলাদেশে মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের সুরক্ষা দুর্বল হয়েছে’ উল্লেখ করে যুক্তরাজ্যের মানবাধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিবেদনে বাংলাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বেড়েছে এবং ও বাক স্বাধীনতা সংকুচিত হওয়ার অভিযোগও তুলে বলা হয়েছে।

২০১৮ সালের বৈশ্বিক পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাজ্যের বার্ষিক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে এসব বিষয় উল্লেখ করা হয়।

তিবেদনে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধের’ সময়, গত বছর মে থেকে জুলাই মাসে, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ও জোরপূর্বক ‘গুম’-এর যে সংখ্যক খবর এসেছে তা এদেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ‘দায়মুক্তি’ নিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়ার অভিযোগকে সমর্থন করে। এর আগের অনেক ঘটনা এখনও অমীমাংসিত রয়ে গেছে ।

গত ডিসেম্বরের অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে সহিংসতার বিষয়টি নজরে এসেছে ব্রিটিশ সরকারের। নির্বাচনে বিরোধীদের অংশগ্রহণ আশাব্যঞ্জক হলেও গ্রেফতারসহ নানাভাবে ‘নির্বাচনী প্রচারে প্রতিবন্ধকতা’ এবং ভোটের দিন অনিয়ম যাতে অনেকে ভোট দিতে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছেন বলে যুক্তরাজ্যের পর্যবেক্ষণ।নির্বাচন ঘিরে সব অভিযোগের গ্রহণযোগ্য ও স্বচ্ছ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে তারা।নির্বাচনে অনিয়মের অনেক অভিযোগ ‘গ্রহণযোগ্য’ বলেও মনে করছে তারা।

এতে আরও বলা হয়, যুক্তরাজ্য এ বিষয়ে স্পষ্ট ও অনড় রয়েছে যে, আমরা অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন দেখতে চাই যেটা একটি গণতান্ত্রিক ও সমৃদ্ধ দেশ হতে বাংলাদেশের উন্নয়নকে সহযোগিতা করবে।